Home Malda প্রতিকূলতাকে জয় করেই জীবনযুদ্ধে জয়ী উৎসা

প্রতিকূলতাকে জয় করেই জীবনযুদ্ধে জয়ী উৎসা

হরিশ্চন্দ্রপুর;;২৩জুলাই: বাবা টিউশন পড়ান। লকডাউনে টিউশন প্রায় জোটে না বললেই চলে। কষ্টেসৃষ্টে দিন কাটে। কিন্তু পারিবারিক প্রতিকূলতাকে জয় করেই মাধ্যমিকে ৯৯ শতাংশেরও বেশি নম্বর পেয়েছে মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুরের উৎসা দাস। কিরণবালা বালিকা বিদ্যাশ্রমে পড়াশুনা করত সে। এবার মাধ্যমিক পরীক্ষা হয়নি। কিন্তু উৎসা বরাবরেরই মেধাবী বলে স্কুল সূত্রে জানা গিয়েছে। ক্লাসে বরাবর সে প্রথম হত। শুধু স্কুলে সবার মধ্যে সর্বোচ্চ নয়। চাঁচল মহকুমার স্কুলগুলির মধ্যেও তার প্রাপ্ত নম্বর সম্ভাব্য সর্বোচ্চ বলে জানা গিয়েছে। তার প্রাপ্ত মোট নম্বর ৬৯৪। কিন্তু প্রতিকূলতাকে জয় করে ভালো ফল করলেও পরিবারের অর্থাভাব কিছুটা হলেও দুশ্চিন্তায় ফেলেছে। যদিও সব বাধাকে দূরে সরিয়ে আপাতত অধ্যাপক হওয়ার লক্ষে অবিচল উৎসা! তার প্রাপ্ত নম্বর বাংলায় ৯৯, ইংরেজিতে ৯৯, অঙ্কে ১০০, ভৌত বিগ্গানে ৯৯, জীবন বিগ্গানে ৯৯, ইতিহাসে ৯৯ ও ভূগোলে ৯৯ পেয়েছে।

 

 

 

 

হরিশ্চন্দ্রপুরের কলমপাড়ায় বাড়ি উৎসার। বাবা উজ্জ্বল দাস ও মা অজন্তা দাস। ইচ্ছে ছিল শিক্ষক হবেন। কিন্তু বিকম পাশ করার পর সংসারের চাপে আর্থিক সমস্যায় আর পড়াশুনা চালিয়ে যেতে পারেন নি। সংসার চালাতে টিউশন শুরু করেন তিনি। উজ্জ্বল দাসের একমাত্র মেয়ে উৎসা। সঙ্গে একটি বইখাতার ছোট দোকানও রয়েছে। কিন্তু করোনাকালে সেই দোকানও কার্য়ত বন্ধ। ঠিকমতো জোটে না টিউশনও। তারপরেও হার মানেন নি তিনি। মেয়ের যাতে পড়াশুনায় কোনও সমস্যা না হয় সেজন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে গিয়েছেন। আর তার মান রেখেছেন মেয়ে উৎসাও। শুধু পড়াশুনাতেই মেধাবি নয়। নাচ, গান, আঁকা, আবৃত্তিতেও পারদর্শী উৎসা। ইচ্ছে থাকলে যে সব বাধাকেই দূর করা যায় তা দেখিয়ে দিয়েছে সে।

 

 

 

উৎসার পরিবার ও তার স্কুল ও এলাকাবাসীদের সূত্রে জানা গিয়েছে, নিজের অভাবে বেশিদূর পড়াশুনা করতে পারেন নি। অভাবের জন্য মেয়ের সমস্যার কথাও জানেন বাবা উজ্জ্বল দাস। তাই নিজের অভাবের মধ্যেও অনেককেই নিখরচায় টিউশন পড়িয়েছেন তিনি। এমনকি কিরণবালা বালিকা স্কুলে যখন অঙ্কের শিক্ষক ছিল না তখন তিন বছর বিনা পারিশ্রমিকে সেখানে পড়িয়েছেন তিনি।

 

 

 

মেধাবী ছাত্রী উৎসা দাস বলে,” নবম শ্রেণীতে ৯৭ শতাংশ নম্বর পেয়েছিলাম। মাধ্যমিকে সেই রকম আশা ছিল। আশা পূর্ণ হয়েছে। আমি ৬৯৪ পেয়েছি। বড় হয়ে অধ্যাপিকা হতে চাই। দুস্থ পরিবারের যে সব ছাত্র-ছাত্রীরা টাকার অভাবে পড়াশোনা করতে পারে না তাদের পাশে দাঁড়াতে চাই।”

 

 

 

 

উৎসার বাবা উজ্জ্বল কুমার দাস বলেন, “মেয়েকে নিয়ে আমাদের আশা পূর্ণ হয়েছে।ও ভবিষ্যতে অধ্যাপিকা হতে চাই।যাতে হতে পারে আমরা ওর পাশে থাকবো।আমার বিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার খুব ইচ্ছে ছিল।ওদের স্কুলে পার্টটাইম তিন বছর পড়িয়েছি।আমার স্বপ্ন মেয়ের মধ্যে দিয়ে পূরণ হতে দেখে খুব ভালো লাগবে। আমি প্রাইভেট টিউশন পড়াই।সাথে একটি ছোট বই-খাতার দোকান রয়েছে।কিন্তু লকডাউনের ফলে ব্যবসার অবস্থা খারাপ।আমার কাছে যারা টিউশনি পড়ত অনেকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।এবার নিজের মেয়েকে প্রতিষ্ঠিত হতে দেখে আরো ভালো লাগছে।”

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা যুথীপুষ্প ভৌমিক বলেন,”উৎসা ছোট থে

 

 

কেই পড়াশোনায় খুব ভাল ছিল। ওকে নিয়ে আমাদের তাই আশা ছিল। ওর এই ফলাফল আমাদের স্কুলকে গর্বিত করেছে। ও অন্যান্য ছাত্রীদের কাছে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। শুধু পড়াশোনা নয় সাথে সব কিছুতেই ও মেধাবী খুব ভালো। নাচ, গান, আঁকা সব খুব ভালো পারে। আমাদের স্কুলে যখন গণিতের শিক্ষিকা ছিল না। তখন ওর বাবা বিনা পারিশ্রমিকে পড়িয়েছে। আমরা শিক্ষিকারা আজ খুব আনন্দিত।”

Most Popular

ইন্দোনেশিয়ায় ফুটবল হাঙ্গামার কারণে বড় শাস্তি হল দুই ক্লাব আধিকারিকের

আধিকারিক ১৭৪ জনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছিলেন।দু’দলের সমর্থকদের মারামারিতে জড়িয়ে পড়ার একাধিক ভিডিয়ো দেখা যায়।ইন্দোনেশিয়ার ফুটবল মাঠে সমর্থকদের হাঙ্গামার কারণে মৃত্যুর ঘটনায় বড় শাস্তি পেলেন...

জলের বোতলে অ্যাসিড পান করে সঙ্কটজনক শিশু, হাত জ্বলে গেল আর এক খুদের

গত ২৭ সেপ্টেম্বর পরিবারের এক সদস্যের জন্মদিন উদ্‌‌যাপন উপলক্ষে ওই রেস্তরাঁয় গিয়েছিলেন মহম্মদ আদিল নামে এক ব্যক্তি। তাঁর অভিযোগ, জলের বোতল দেন রেস্তরাঁর এক...

সবুজ বেনারসি ও গা ভর্তি গয়নায় সাজলেন শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়, শাড়ির দাম শুনলে মাথা ঘুরে যাবে

চট্টোপাধ্যায়কে প্রতিটা সাজেই এত সুন্দর দেখায় যে, তা দেখে প্রেমে পড়ে যান অনুরাগীরা। আর তা হবে না কেন? অভিনেত্রীর সৌন্দর্যের কদর তো করতেই হবে।...

মাত্র ৬৯৯এ পেয়ে যান বার্বিকিউ, ইন্ডিয়ান, চাইনিজ, রকমারি ডেজার্ট। সব মিলিয়ে ৪০রকমের খাবার পেয়ে যাবেন আপনি।

পুজোয় ডান হাতের কাজ বন্ধ রাখা যায় না। ভোজনপ্রিয় বাঙালির কাছে এটা প্রায় দুঃসাধ্য। যাঁরা সারা বছর কড়া ডায়েটে থাকেন, তাঁরাও এই কটা দিন...

Recent Comments