Home চুলের জোগান চুলের জোগান দেওয়ার ব্যবসায় বাংলা প্রথম স্থানে

চুলের জোগান দেওয়ার ব্যবসায় বাংলা প্রথম স্থানে

চুলচেরা বিচারে বাংলা আবার প্রথম স্থানে।ভারতের মধ্যে শীর্ষে কলকাতা থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরের এক গ্রাম।পৃথিবীর সর্বত্র চুলের জোগান দেওয়ার ব্যবসায় শীর্ষ স্থানে রয়েছে ভারত। এবং তা রয়েছে মূলত বাংলার এক গ্রামের দৌলতেই। যেখানে ঘরে ঘরে তৈরি হয় নকল চুল। সেখানে কেউ চুল তৈরির কারখানার রোজের কর্মী, কেউ বা কারখানা চালান। কেউ আবার অন্য কাজের ফাঁকে পরচুলা বানান।গোটা বিশ্বে পরচুলার প্রায় ৫৮০ কোটি ডলারের ব্যবসা হয়েছিল ২০২১ সালে। এ বছর তা আরও বাড়বে বলেই ধারণা অনেকের। ‘উইগ’ তৈরি করতে অনেক ক্ষেত্রে কৃত্রিম জিনিস ব্যবহার করা হলেও তার এক-তৃতীয়াংশই তৈরি হয় আসল চুল দিয়ে।

সেই চুলের অনেকটাই যায় ভারত থেকে। ২০২১ সালে ৭৭ কোটি আমেরিকান ডলারের চুল বিদেশে গিয়েছে এখান থেকে। ২০২০ সালের সঙ্গে তুলনা করলে সে সংখ্যাটি প্রায় দ্বিগুণ। এমনই হারে বাড়ছে পরচুলার ব্যবসা।শোনা যায়, ভগবানের কাছে দান করা চুলেই পেট চলে এই গোটা গ্রামের। শুধু পেট চলে বললে কম বলা হবে। দানের চুলের মহিমায় এখন গোটা বিশ্বের কাছে পরিচিত সে গ্রামের নাম।তন্নু ওয়েডস মন্নু’-তে কঙ্গনা রানাউতের দু’রকমের চুলের সাজ মনে আছে? সে সব তো আর এমনি এমনি হয়নি! তার জন্য পরচুলা লেগেছিল। নানা ধরনের চুলের ছাঁট দেওয়া ‘উইগ’ (পরচুলা) তৈরি হয় অভিনেতা-মডেলদের সাজাতে। তাঁদের দেখে এখন দেশ-বিদেশের নানা প্রান্তে পরচুলা পরার চল বেড়েই চলেছে। কেউ টাক ঢাকেন ‘উইগ’ দিয়ে।

কেউ অন্য ছাঁটের চুল পরে চেহারায় আনেন নতুনত্বের ছোঁয়া। কেউ বড় চুল ঢাকেন ববছাঁট পরচুলার আড়ালে, কেউ বা ১০ ইঞ্চির চুলের সঙ্গে বেঁধে নেন ১২ ইঞ্চির বেণী।গ্রামের নাম বাণীবন জগদীশপুর। বড় রাস্তা থেকে মন্দির পেরিয়ে গাঁয়ের অলি-গলির ভিতরে ঢোকার আগে পর্যন্ত বোঝার উপায় নেই যে, এ অঞ্চল হাওড়া জেলার আর পাঁচটি জায়গার চেয়ে আলাদা। গ্রামের ভিতরে ঘরে ঘরে হাতের কাজ হতে দেখা যায় বাংলার নানা প্রান্তেই। এখানেও এক একটি গলির ভিতরে আছে এক একটি কারখানা। গ্রামবাসীদের বাড়ির রোজনামচার মধ্যেও জায়গা করে নিয়েছে পরচুলা।

রান্নাবান্না, লেখাপড়ার সঙ্গে সমান তালে চলতে থাকে খোঁপা, বেণী, ববছাঁট চুলের উইগ, লম্বা স্টেপকাট চুলের উইগ তৈরির কাজ!গ্রামের বধূ থেকে মাঝবয়সি গৃহকর্তা— অধিকাংশেই কোনও না কোনও ভাবে নকল চুল তৈরির এই কাজে যুক্ত। কেউ চুল তৈরির কারখানার রোজের কর্মী, কেউ বা কারখানা চালান। কেউ আবার অন্য কাজ সামলে ফাঁকা সময়ে কিছুটা কাজ হাতে নেন।

তবে সে গ্রাম কি বাংলার অন্য সব গ্রামের চেয়ে চেহারায় একেবারে আলাদা? দেখে কি বোঝা যাবে প্যারিস থেকে নিউ ইয়র্ক, সব জায়গার সেরা সুন্দরীদের সাজিয়ে তোলার ব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত এ সব ঘরের বাসিন্দারা? এ সব চুলের ক্রেতারাও কি আদৌ জানেন যে, কলকাতা শহরের থেকে খানিক দূরে হাওড়ার এক প্রান্তে একটি গাঁয়ে কোনও এক গৃহবধূ সারা দিন ঘরের কাজ সামলে সন্ধ্যায় বসেন তাঁদের সাজের সরঞ্জাম বানাতে? সে গ্রামের অলিগলি ঘুরে তেমন মনে হবে না।

Most Popular

পোস্ত কীভাবে এল? দেখুন বিস্তারিত

পেঁয়াজ বা রসুন ছাড়াই রান্না করা এই পদটি প্রতিটি বাঙালি পরিবারের সবচেয়ে সহজ, আরামদায়ক এবং প্রধান নিরামিষ খাবার। পোস্তবাঁটার (Posto Bata) অনন্য স্বাদ, কাঁচা...

রাস্তার ধারে গাছগুলিতে করা হয় সাদা রং ,তবে জানেন কি, কেনো করা হয় ?

রাস্তা দিয়ে পারাপার করার সময় চোখের সামনে অনেক কৌতূহল পূর্ণ জিনিসপত্র ধরা পড়ে। সেই সকল কৌতূহল জিনিসপত্র সম্পর্কে জানার ইচ্ছেও কম থাকে না। সেই...

মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের পর কেমন আছেন মুকুল রায়?

তাঁর মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করতে হল। আপাতত তিনি বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।সূত্রের খবর, ভুলে যাওয়া থেকে শুরু করে, ব্যালেন্সিংয়ের সমস্যা হচ্ছে প্রবীণ...

শিয়ালদহ মেন শাখায় ট্রেনের দুর্ভোগ বেশ কিছু দিন ধরেই চলছে,নাজেহাল যাত্রীরা।

সকাল ১০.৪০ মিনিটে ডাউন ভাগীরথী এক্সপ্রেস শিয়ালদহ পৌঁছানোর কথা থাকলেও, ওই ট্রেন এ দিন বিকেল চারটের পর গন্তব্যে পৌঁছোয়। ক্ষোভে ফেটে পড়েন যাত্রীরা। সকাল...

Recent Comments