Home খবর সরকারি চাকরি করা মেয়ে চাই ,বাড়ির সব কাজ পারি শুধু দরকার একটি...

সরকারি চাকরি করা মেয়ে চাই ,বাড়ির সব কাজ পারি শুধু দরকার একটি সরকারি চাকরি করা বউ এর

কি প্রথমে শুনে অবাক হয়েছেন নিশ্চয়ই। হ্যা এটাই বাস্তব আজকের দিনে যা অবস্থা চাকরির বাজারে তাই ছেলেরা ঘরের সমস্ত কাজ শিখে ফেলছেন ।সরকারি চাকরিরতা পাত্রী খুঁজছেন গৃহকর্মে নিপুণ এক পাত্র। তিনি নিজেও কেন্দ্রীয় সরকারি চাকরি করেন। কিন্তু কেউ পাত্রী হিসাবে এগিয়ে এলে চাকরিটি ছেড়ে, খেলাধূলায় নিজের স্বপ্ন নিয়ে এগোবেন। এবং সংসার সামলাবেন। রাজি আছেন? সামাজিক মাধ্যমে এমনই বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে পোস্ট করেছেন বছর ৩৪-এর জয়রূপ মল্লিক।

নিজের ছবির সঙ্গে দু’টি বাক্য – ‘ঘরের সব কাজ করতে পারি। একটা সরকারি চাকরিওয়ালা বউলাগবে।’আদতে শিবপুরের বাসিন্দা জয়রূপ কর্মসূত্রে এখন থাকেন মহারাষ্ট্রের কল্যাণে। তিনি বলছেন, ‘আমি কিন্তু নিছক মজা করে পোস্টটি দিইনি। কন্ট্র্যাক্ট ব্রিজ নিয়ে আন্তর্জাতিক স্তরে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে চাই। সেটাই আমার স্বপ্নের কেরিয়ার। তাই সমমনস্ক কেউ যদি আমাকে এই পথে এগোতে আমার পাশে থাকেন, তাঁকে খুঁজছি।’প্রশ্ন উঠেছে, বিবাহ অভিযানে অভিযাত্রীদের ভূমিকা কি বদলাচ্ছে? রমণীর দোষ-গুণের পিতৃতান্ত্রিকতা থেকে বেরোতে পারবে সংসার? নাকি জয়রূপ ব্যতিক্রমই? বাধ্য হয়ে স্ত্রীকে কর্মক্ষেত্রে পাঠালেও বেশিরভাগ পুরুষ আদতে সত্যজিতের ‘মহানগর’-এর সুব্রত হয়েই থেকে যান?

তা ছাড়া, মহিলাদের সামাজিক বৈষম্য দূর হবে কোন পথে? যে প্রশ্নটা তুলছেন চলচ্চিত্র পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, ‘হাউজ হাজব্যান্ড বিষয়টা অভিনব নয়। তবে এ ভাবে নিজেকে তুলে ধরাটা অবশ্যই নতুন। এই ভাবনার বিরোধিতার কোনও কারণ নেই। কিন্তু এতে মূল সমস্যার সমাধান হবে না। কারণ পুরুষশাসিত সমাজে মেয়েদের কাজের পরিধি অনেকটা কম, সুযোগ-সুবিধা সীমিত। তাই সামাজিক এই লড়াই যতক্ষণ না শেষ হচ্ছে, পুরুষতান্ত্রিকতায় যতক্ষণ না ইতি পড়ছে, ততক্ষণ বৈষম্যজনিত মূল সমস্যার সমাধান হবে বলে মনে হয় না।’পুরুষ অধিকার কর্মী নন্দিনী ভট্টাচার্য বিষয়টিকে স্বাগত জানাচ্ছেন।

এতে মহিলাদের প্রকৃত ক্ষমতায়ন হবে বলেই তাঁর মত। অন্তত শুরুটা তো হবে। অথচ নারী আন্দোলন কর্মী শাশ্বতী ঘোষের মতে, ‘এই প্রস্তাবে কাজের বিনিময়ে খাওয়া-পরা, নিরাপত্তার অন্তর্নিহিত বিনিময়কেই স্বীকৃতি দেওয়া হচ্ছে। অথচ এরই বিরুদ্ধে বহু সংগঠনের লড়াই।’কথাটা ঠিকই যে হাউজ হাজব্যান্ড বিষয়টা একেবারেই অভিনব, তা নয়। এবং যিনি বাড়িতে থাকেন, অনেক ক্ষেত্রেই কাজকর্ম সামাল দেওয়ার ভার পড়ে তাঁর উপরে।

স্ত্রীর চাকরির জন্য নিজের কাজ ছেড়ে আমেরিকা পাড়ি দেওয়া বা নিজের গবেষণার ছুটিতে বাড়ির ভার পুরোদস্তুর সামলেছেন, এমন বহু নিদর্শন আশপাশে রয়েছে। তরুণ চলচ্চিত্র পরিচালক সোহিনী দাশগুপ্ত জানান, এক দম্পতির কথা তিনি শুনেছিলেন, যাঁদের ভূমিকাগুলো এমন। স্ত্রী, সন্তান ও পরিচিত সকলে একে খুব স্বাভাবিক ও সদর্থক ভাবেই নিয়েছিলেন। রাজনীতি, শিল্পের মতো কিছু পেশায় বিষয়টা খুব স্বাভাবিকও। তাঁর কথায়, ‘ব্যক্তিগত ভাবে আমার যদিও মনে হয়, সকলেরই নিজের পায়ে দাঁড়ানো উচিত। সেটা তাঁর অর্থনৈতিক স্বাধীনতার জন্য।

Most Popular

পোস্ত কীভাবে এল? দেখুন বিস্তারিত

পেঁয়াজ বা রসুন ছাড়াই রান্না করা এই পদটি প্রতিটি বাঙালি পরিবারের সবচেয়ে সহজ, আরামদায়ক এবং প্রধান নিরামিষ খাবার। পোস্তবাঁটার (Posto Bata) অনন্য স্বাদ, কাঁচা...

রাস্তার ধারে গাছগুলিতে করা হয় সাদা রং ,তবে জানেন কি, কেনো করা হয় ?

রাস্তা দিয়ে পারাপার করার সময় চোখের সামনে অনেক কৌতূহল পূর্ণ জিনিসপত্র ধরা পড়ে। সেই সকল কৌতূহল জিনিসপত্র সম্পর্কে জানার ইচ্ছেও কম থাকে না। সেই...

মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের পর কেমন আছেন মুকুল রায়?

তাঁর মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করতে হল। আপাতত তিনি বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।সূত্রের খবর, ভুলে যাওয়া থেকে শুরু করে, ব্যালেন্সিংয়ের সমস্যা হচ্ছে প্রবীণ...

শিয়ালদহ মেন শাখায় ট্রেনের দুর্ভোগ বেশ কিছু দিন ধরেই চলছে,নাজেহাল যাত্রীরা।

সকাল ১০.৪০ মিনিটে ডাউন ভাগীরথী এক্সপ্রেস শিয়ালদহ পৌঁছানোর কথা থাকলেও, ওই ট্রেন এ দিন বিকেল চারটের পর গন্তব্যে পৌঁছোয়। ক্ষোভে ফেটে পড়েন যাত্রীরা। সকাল...

Recent Comments