Home খবর রুশার বিয়ের মেনু শুনলে জিভে জল আসবে আপনার চলুন তবে জেনে নেওয়া...

রুশার বিয়ের মেনু শুনলে জিভে জল আসবে আপনার চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক ।

অশোকনগরের বাসিন্দা হলেও কর্মসূত্রে সিয়াটলে থাকেন অনুরণন। তিনি মাইক্রোসফটে চাকরি করেন। বিয়ের পর আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে অভিনয় জগতকে বিদায় জানিয়ে স্বামীর সাথে সিয়াটল পাড়ি দেবেন রুশা। 19 শে জানুয়ারি, যথেষ্ট জাঁকজমকপূর্ণ ভাবে বিয়ে করলেও ইন্ডাস্ট্রির কোনো মানুষকে দেখা যায়নি রুশার বিয়েতে।19 শে জানুয়ারি, ইকো পার্ক সংলগ্ন ব্যাঙ্কোয়েটে বসেছিল রুশার বিয়ের আসর। পাত্র অনুরণন রায়চৌধুরী (Anuranan Roychowdhury) পেশায় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। আটপৌরে ধরনে শাড়ি পরেছিলেন রুশা। কোমরে ছিল সোনার কোমরবিছে। হাতে সোনার কঙ্কনের পাশাপাশি শাঁখা-পলা-নোয়া।

বিয়ের প্রতিটি রীতি মেনে সাতপাকে বাঁধা পড়লেন রুশা ও অনুরণন। তবে অনুরণন বিয়ের সময় রীতি মেনে উত্তরীয় ও ধুতি পরেননি। তাঁর পরনে ছিল অফ হোয়াইট শেরওয়ানি যাতে ছিল সোনালি রঙের কারুকার্য। তার সাথে সরু পাড় ধুতি পরেছিলেন অনুরণন।এদিন লাল রঙের কাঞ্জিভরম বেনারসিতে সেজেছিলেন রুশা। মেহেন্দি নয়, আলতায় রাঙিয়েছিলেন হাতের পাতা। সিঁথি সাজিয়েছিলেন টিকলি ও টায়রা দিয়ে। নাকে ছিল নথ। গলায় পছন্দসই নেকপিসের পাশাপাশি ছিল টেম্পল জুয়েলারি।এলাহি আয়োজন ছিল মেনুতেও।

স্টার্টারে বিভিন্ন ধরনের কাবাব থাকলেও মেন কোর্সের শুরুতেই ছিল শীতের স্পেশ্যাল পদ মটরশুঁটির কচুরী। ছিল বিরিয়ানি ও পোলাও। কবিরাজি ও মাংসের বিভিন্ন পদ সম্পূর্ণ করেছিলেন বিয়ের মেনুকে। শেষপাতে বাদ যায়নি মিষ্টিমুখও। এখানেও শীতের বিশেষ আকর্ষণ নলেনগুড়ের রসগোল্লাই ছিল রাজা। পাশাপাশি ছিল জিলিপি, রাবড়ি, সন্দেশ।

Most Popular

পোস্ত কীভাবে এল? দেখুন বিস্তারিত

পেঁয়াজ বা রসুন ছাড়াই রান্না করা এই পদটি প্রতিটি বাঙালি পরিবারের সবচেয়ে সহজ, আরামদায়ক এবং প্রধান নিরামিষ খাবার। পোস্তবাঁটার (Posto Bata) অনন্য স্বাদ, কাঁচা...

রাস্তার ধারে গাছগুলিতে করা হয় সাদা রং ,তবে জানেন কি, কেনো করা হয় ?

রাস্তা দিয়ে পারাপার করার সময় চোখের সামনে অনেক কৌতূহল পূর্ণ জিনিসপত্র ধরা পড়ে। সেই সকল কৌতূহল জিনিসপত্র সম্পর্কে জানার ইচ্ছেও কম থাকে না। সেই...

মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের পর কেমন আছেন মুকুল রায়?

তাঁর মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করতে হল। আপাতত তিনি বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।সূত্রের খবর, ভুলে যাওয়া থেকে শুরু করে, ব্যালেন্সিংয়ের সমস্যা হচ্ছে প্রবীণ...

শিয়ালদহ মেন শাখায় ট্রেনের দুর্ভোগ বেশ কিছু দিন ধরেই চলছে,নাজেহাল যাত্রীরা।

সকাল ১০.৪০ মিনিটে ডাউন ভাগীরথী এক্সপ্রেস শিয়ালদহ পৌঁছানোর কথা থাকলেও, ওই ট্রেন এ দিন বিকেল চারটের পর গন্তব্যে পৌঁছোয়। ক্ষোভে ফেটে পড়েন যাত্রীরা। সকাল...

Recent Comments